News Update :
Hot News »
Bagikan kepada teman!

শক্তিশালী বোমাতেও ক্ষতি হবে না কিং খানের!

Bolloywood King Shaharukh
শক্তিশালী বোমাতেও ক্ষতি হবে না কিং খানের। মার্সিডিজ কোম্পানির বিশেষায়িত গাড়ি কিনেছেন শাহরুখ খান। এটি শক্তিশালী বোমার আঘাতেও ক্ষতি হবে না।

মাস দুয়েক আগে শাহরুখ খানের ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং বলিউডের প্রযোজক আলি মোরানির বাড়িতে গুলিবর্ষণ করে গ্যাংস্টাররা। এ ঘটনার পর শাহরুখের নিরাপত্তা বাড়ায় দেশটির পুলিশ।

পুলিশ দাবি করেছিল, শাহরুখের নিরাপত্তা নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই। তারপরেও কেন বাড়ানো হলো নিরাপত্তা? উত্তর মেলেনি তার।

অবশ্য বলিউড বাদশাহ এ বিষয়ে মুখ খোলেননি। তবে বোমাপ্রতিরোধক গাড়ি কেনার পর নিজের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কায় আছেন তিনি নিজেই।

জানা গেছে, শাহরুখ খানের মার্সিডিজ কোম্পানির ‘বোমপ্রুফ’ গাড়িটি বিশেষভাবে নির্মিত ও সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন। শক্তিশালী বোমার আঘাতেও গাড়ির আরোহীর কোনো ক্ষতি হবে না। অক্ষত থাকবে গাড়িটিও। অবশ্য মার্সিডিজ কোম্পানির বুলেটপ্রুফ এই গাড়ি কেবল ভিভিআইপিদের জন্যই প্রস্তুত করা হয়।

গাড়িটির কেনার পেছনে শাহরুখ খান কত টাকা ব্যয় করেছেন তা জানা যায়নি। চলতি বছর আমির খানও একটি বোমপ্রুফ গাড়ি কিনেছেন। এজন্য তার খরচ হয়েছে কোটি দশেক রুপি। ‘সত্যমে জয়তে’ অনুষ্ঠানে নানা বিষয়ে কথা বলার পর বিভিন্ন জায়গা থেকে হুমকি পেতে থাকেন আমির খান। এ কারণেই মূলত তার বোমপ্রুফ গাড়িটি কেনা। সূত্র : ইন্টারনেট

comments | | Read More...

দুই বোনের সঙ্গে বিছানায় স্বপ্নের জাল বুনতেন জেনিফার

Hollywood Actress
তখনও তারকার খ্যাতি পাননি। ব্রোনক্সে দুই বোনের সঙ্গে থাকতেন গায়িকা-অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজ। বেড়ে ওঠার ওই সময়ে দুই বোনের সঙ্গে একই শয্যায় ঘুমোতে যেতেন লোপেজ। সেই দিনগুলির কথা এখনও মনে পড়ে তাঁর।

তিনি বলেছেন, বিছানায় তাঁরা স্বপ্নের জাল বুনতেন। একে অপরের সঙ্গে নিজের ইচ্ছা, আকাঙ্খার কথা বলতেন। অন্যান্য বাড়ির বাচ্চাদের মতোই তাঁরাও একসঙ্গেই থাকতেন। নিজের দুই বোনের সঙ্গেই মনের কথা বলতেন এবং শুনতেন জেলো।

নিজের পারিবারিক সংস্থা লোপেজ ফ্যামিলি ফাউন্ডেশনের অনুষ্ঠানে জেলো বলেছেন, প্রত্যেক মা ও বাচ্চার কাছে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত শিক্ষা পৌঁছে দিতে চান তিনি।

comments | | Read More...

দেশে ফিরে শাবনূরের যত কথা

Bangladeshi Actress Shabnoor
এক সময়কার বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবনূর দীর্ঘদিন প্রবাসে থাকার পর দেশে ফিরেছেন। গত ১ অক্টোবর অনেকটা নীরবেই তার সন্তান আইজান নেহানকে নিয়ে দেশে ফিরেছেন এ ঢালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী।

তিনি ঢাকায় এসে উত্তরায় তার স্বামীর বাসায় ওঠেন। সম্পতি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন শাবনূরের স্বামী অনিক মাহমুদ। তিনি জানান, ‘শাবনূর ঈদের আগেই দেশে ফিরেছে। আমার ইচ্ছে আছে শিগগিরই সবাইকে নিয়ে একটি অনুষ্ঠান করার।

আমাদের সন্তান ও শাবনূরের দেশে ফেরা উপলক্ষে অনুষ্ঠানটি করতে চাই।’ অনিক মাহমুদ আরো জানান, বর্তমানে শাবনূর দেশেই থাকবেন, মাঝে মধ্যে হয়তো অস্ট্রেলিয়ায় যাবেন। তবে এখনই কোনো শুটিংয়ে চুক্তিবদ্ধ হবেন না তিনি।

বলা ভালো, ২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর সহশিল্পী অনিককে বিয়ে করেন শাবনূর। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে পুত্র সন্তানের জন্ম দেন তিনি।


comments | | Read More...

পছন্দের নারীকে আকর্ষন করার ‘গোপন কৌশল

Car Insurance
বেশ কিছুদিন ধরেই ভালো লেগে গেছে মেয়েটিকে। মনে হয় প্রেমেই পড়ে গিয়েছেন তার। সারাদিনের চিন্তায় শুধুমাত্র এই একটিই মানুষ। সমস্ত সুখ যেন সেই মানুষটিকে ঘিরেই। সে আপনার আশে পাশে থাকলে পৃথিবীটাকে অনেক বেশি সুন্দর মনে হয় আপনার কাছে। সব কিছুই প্রেমে পড়ার লক্ষণ।

কিন্তু সমস্যা একটাই। বুঝতে পারছেন না কিভাবে আপনি আকর্ষণ করবেন সেই মেয়েটিকে প্রিয় মানুষকে মনের কথা গুলো বলতে হলে এবং রাজি করাতে হলে প্রিয় মানুষটির মনোযোগ আকর্ষণ করা জরুরি। আর তাই পছন্দের নারীটিকে আকর্ষণ করার জন্য আপনাকে হতে হবে সচেষ্ট। আসুন জেনে নেয়া যাক পছন্দের নারীকে আকর্ষণ করার ৯টি সহজ উপায় সম্পর্কে—-

পছন্দের নারীর জীবনে সুপারম্যানের ভূমিকায় অবতীর্ণ হনঃ

আপনি যদি আপনার পছন্দের নারীকে আকৃষ্ট করতে চান তাহলে তার জীবনের ‘সুপার ম্যান’ হয়ে যান। অবাক হয়ে গেলেন? সুপার ম্যান হওয়া তেমন কোনো কঠিন বিষয় না। শুধু পছন্দের মানুষটির বিপদে পাশে দাঁড়ালে আর ইচ্ছা অনিচ্ছার দিকে খেয়াল রাখলেই আপনি হতে পারবেন তার সুপার ম্যান।

সবসময় তাঁর কল ও মেসেজের জবাব দিনঃ

আপনার পছন্দের নারীটি যদি আপনাকে খুব শখ করে কল করে কিংবা ম্যাসেজ দেয় তাহলে আপনি যত ব্যস্তই থাকুন না কেন চেষ্টা করুন সেগুলোর জবাব দিতে। একবার যদি অবহেলা করে ফেলেন তাহলে আপনার প্রিয় মানুষটির সাথে আপনার দূরত্ব বেড়ে যাবে অনেক খানি।

দুঃসময়ে উপদেশ না দিয়ে পাশে থাকুনঃ

আপনার পছন্দের নারীটির জীবনে দুঃসময় চলছে? তাকে অহেতুক উপদেশ বাণী না শুনিয়ে তাকে সঙ্গ দিন। চেষ্টা করুন সব সময় তার পাশে থাকার। তাহলে সে আপনার প্রতি আকৃষ্ট হবে।

নিজের চুলের যত্ন নিনঃ

নারীরা ছেলেদের চুল খুবই ভালোবাসে। সুন্দর ও পরিষ্কার চুল এবং আধুনিক হেয়ার কাট দিয়ে নিজেকে ফিটফাট রাখুন। আপনার পছন্দের নারী খুব সহজেই আপনার প্রতি আকৃষ্ট হবেন।

নিজেকে রাখুন দৈহিক ভাবেও আকর্ষণীয়ঃ

পছন্দের নারীকে আকর্ষণ করতে চাইলে আপনার দৈহিক গঠনের দিকে খেয়াল রাখুন। অতিরিক্ত ওজন, খুব কম ওজন কিংবা ভুড়ি আপনার আকর্ষন কমিয়ে দিতে পারে আপনার প্রিয় মানুষটির কাছে। আর তাছাড়া আপনার শারীরিক গঠন সুন্দর হলে আপনাকে যে কোনো পোশাকেই মানিয়ে যাবে। এখনকার নারীরা ছেলেদের ফিগারের ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন। তাই আপনার পছন্দের নারীকে আকর্ষন করতে চাইলে নিজের শারীরিক গঠনের দিকে খেয়াল রাখুন।

পারফিউম ছাড়া চলবেন না মোটেইঃ

নারীরা সব সময়েই সুন্দর ঘ্রান পছন্দ করে। আর তাই একজন নারীকে আকর্ষণ করার সবচাইতে কার্যকরী একটি উপায় হলো রুচিশীল সুন্দর সুগন্ধী ব্যবহার করা। আপনার পছন্দের নারীর আশে পাশে থাকলে অন্তত সুগন্ধী ব্যবহার করার চেষ্টা করুন। এতে সে আপনার প্রতি আকৃষ্ট হবে এবং আপনার প্রতি তার আকর্ষণ সৃষ্টি হবে।

পরিচ্ছন্নতা ও স্মার্টনেসের দিকে খেয়াল রাখুনঃ

পছন্দের নারীটিকে আকর্ষণ করার জন্য সব সময় পরিচ্ছন্নতা ও স্মার্টনেসের দিকে লক্ষ্য রাখুন। নারীরা স্মার্টনেস পছন্দ করেন। বিশেষ করে ক্যাসুয়াল পোশাকে চাইতে ফরমাল পোশাকেই পুরুষদেরকে বেশি পছন্দ করেন নারীরা। তাই পছন্দের নারীর মন পাওয়ার জন্য নিজেকে সব সময় ফিটফাট ও পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন।

হাসি ও খাওয়াদাওয়ার মার্জিত ভঙ্গি রপ্ত করুনঃ

নারীরা হাসিখুশি পুরুষদেরকে পছন্দ করে। গম্ভীর ধরনের পুরুষদের ধারে কাছেও ঘেষতে চায় না নারীরা। পছন্দের নারীর মন পেতে চাইলে সব সময় হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন। নিজেকে আড্ডা, রসালাপ ও নানান রকম প্রানবন্ত কাজে নিয়জিত করুন। এছাড়াও খাওয়ার দাওয়ার ভঙ্গিতেও হওয়া চাই স্মার্ট। শব্দ করে খাওয়া কিংবা ছড়িয়ে ছিটিয়ে খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করুন। তাহলে আপনার পছন্দের নারী খুব সহজেই আপনার প্রতি আকর্ষণবোধ করবে।

চোখে চোখ রেখে কথা বলতে শিখুনঃ

পছন্দের নারীর মন পেতে চাইলে তার সাথে সব সময় চোখে চোখ রেখে কথা বলুন। কথা বার্তায় কোনো ধরনের জড়তা রাখবেন না। কথা বার্তার জড়তা কিংবা নিজেকে গুটিয়ে রাখা নারীরা একেবারেই পছন্দ করেন না। সম্ভব হলে তার প্রতি আপনার আকর্ষণের বিষয়টি সরাসরি বলে দিন। এতে আপনার পছন্দের নারী রাজি হোক কিংবা না হোক আপনার প্রতি তার ধারণা ভালো হবে এবং আপনার নির্ভিকতার প্রতি আকৃষ্ট হবে সে।


সুত্র: breakbd.com
comments | | Read More...

সহবাসের চেয়ে ব্লু ফিল্ম বেশি পছন্দ নারীদের

Car Donate to Charity For California
পুরুষের চেয়ে নারীরা সমকামি পর্ণ ছবি দেখতে বেশি পছন্দ করেন৷ এই ধরণের নারীরা পুরুষদের চেয়ে বেশি মাত্রায় ব্লু ফিল্ম দেখেন৷ সম্প্রতি নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, মহিলারা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেন লেসবিয়ান পর্ণ, এরপরেই গে পর্ণ এবং সবশেষ তাদের পছন্দ টিন-পর্ণ৷ কিন্তু ছেলেরা সাধারনত স্বাভাবিক ব্লু ফিল্মই দেখেন৷

পর্ণ সার্চ ইঞ্জিন ‘পর্নহাব’য়ে এক গবেষক লিখেছেন যে তারা লিঙ্গ বৈষম্যের ভিত্তিতে গবেষণা করে তবেই পরিসংখ্যান সংগ্রহ করেছেন৷ এই পরিসংখ্যানের ভিত্তিতেই তারা নারীদের পছন্দ বুঝতে পেরেছেন৷

সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী ইন্টারনেট কোম্পানি ‘বাজফিড’য়ের সঙ্গে মিলেই এই গবেষণা করা হয়৷ এর সাহায্যেই পর্ণগ্রাফির দর্শকদের বয়স সম্পর্কে জানতে পেরেছেন তারা৷


সুত্র: www.breakbd.com
comments | | Read More...

যৌন মিলনে স্ত্রীর দ্রুত তৃপ্তি বাড়ানোর ১০ উপায়

Online Degree
যৌন উত্তেজনা বাড়ানোর ১০ উপায়, প্রতিদিন একইভাবে যৌন মিলনেও অনেক সময় যৌন মিলনেও অনেক সময় যৌন উত্তেজনা হ্রাসের ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে পারে। এখানে কয়েকটি টিপসের আলোচনা করা হবে যাতে করে উত্তেজনা বৃদ্ধিতে আপনি কিছুটা হলেও ফলপ্রসূ হন।

নারী উপরে এই অবস্থায় পুরুষের লিঙ্গ নারীর যৌনী তে ৪৫ ডিগ্রি এ্যাঙ্গেলে প্রবেশ করাবে নারী এবং নারী পুরুষের অনুত্থিত লিঙ্গকে হাত দিয়ে নাড়াচাড়া করে একে সুদৃঢ় করে তুলবে। সে তার স্তন, ভগাঙ্কুর এবং পশ্চাৎপ্রদেশের ব্যবহারে পুরুষকে উত্তেজিত করে তুলবে।

এতে করেও যদি পুরুষাঙ্গ উত্থিত না হয় তবে একইভাবে পুনর্বার দেখা যেতে পারে। জি-স্পট সেক্স এতে করে নারী দু হাঁটু গেড়ে অনেকটা কুকুরের মতো বসবে। পুরুষ তার লিঙ্গ প্রবেশ করাবে। নারীর সবচেয়ে যৌন অঞ্চল মানে হলো ভগাঙ্কুর।

পুরুষের লিঙ্গ একবার এতে ছোঁয়ালেই নারীর যৌনানুভূতি প্রবল হয়। এতে করে পুরুষেরও যৌন অনুভতি দৃঘ হবার কথা। নারী পুরুসকে এই ভাবেও উত্তেজিত করতে পারে। যৌন বিজ্ঞানীরা একে জি-স্পট সেক্স বলে। কেননা এতে করে নারী ইংরেজী জি অক্ষরের মতো আসন নিয়ে বসে। পৌনপুনিকতা পুরুষ তার উত্তেজনা বাড়াতে নারীর যোনিমুখে তার লিঙ্গকে প্রবেশ করানোর পূর্বে নারীর নিচের দিককার অর্থাৎ ভগাঙ্কুর, যোনি ইত্যাদিতে হাতের স্পর্শ বা মুখের স্পর্শ ঘটাতে পারে।

এতে করে পুরুষের যৌন উত্তেজনা বেড়ে যেতে পারে। আধুনিক হট স্পট যৌন বিজ্ঞান দেখেছে, নারীর পুরো শরীরই যৌন উত্তেজক। বিশেষ করে পেটের এবং তলপেটের নিচের দিকে ভগাঙ্কুরের মাঝামাঝি স্থানে নারী উত্তেজনা মারাত্মকভাবে লুকিয়ে থাকে। তবে বিভিন্ন নারীদের বিভিন্ন রকম হতে পারে। পুরুষদের তাদের নারীদের সাথে যৌন মিলনে যাবার সময় এটি বেছে নিতে হবে।

এতে করে পুরুষদের উত্তেজনা চূড়ান্ত হবার আশঙ্কা থাকে। পুরো শরীর জিহ্বা এবং হাতের আঙ্গুল যৌন উত্তেজনা বাড়াতে পারে। নারীর যোনিমুখের পাতলা আবরণ এবং ক্লাইটোরিস বা ভগাঙ্কুর যদি পুরুষ তার জিহ্বা দিয়ে নাড়াচাড়া করে তবে নারীর অনুভূতি চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এছাড়াও ভালভাবে নখ ছেঁটে পুরুষ তার হাতের আঙ্গুল নারীর যোনিতে প্রবেশ করিয়েও তাকে তীব্র যৌনকাতর করে ফেলতে পারে। এতে করে নারীর উত্তেজনা পুরো শরীরে প্রবেশ করে এবং উত্তেজনার রেশ বাড়তে থাকে।

নারীর অধিগ্রহণ পুরুষের মুখের কাছে নারী তার যৌনাঞ্চলগুলো স্পর্শ, ঘ্রাণ দিয়ে যাবে। অনেক সময় নারীর যৌন অঞ্চলের ঘ্রানে পুরুষের উত্তেজনা দ্বিগুণ হয়। এতে করে পুরুষ বেশি উত্তেজিত হয়ে উঠবে। একে নারীর অধিগ্রহণ বলা হয়। মৌখিক তীব্রতা সাধারণভাবে এটা ওরাল সেক্স।

নারী পুরুষের লিঙ্গ, লিঙ্গদেশ এবং লিঙ্গমুন্ডের অগ্রভাগে চুমু দিয়ে, অথবা মুখের লালা দিয়ে ভিজিয়ে পুরুষকে চূড়ান্ত উত্তেজনা দিতে পারে। আবার নারী পুরুষের লিঙ্গকে মুখের ভেতর বার বার প্রবেশ এবং বের করতে পারে। এতে করেও পুরুষের উত্তেজনা আসবে এবং যৌন শীতলতা কমে যাবে। মুখোমুখি নারীকে শুয়ে পুরুষ কিংবা পুরুষকে শুইয়ে নারী পরস্পর পরস্পরের দিকে যৌনতার দৃষ্টিতে চেয়ে থাকলে নারী- পুরুষ উভয়ের উত্তেজনা বেড়ে যায়।

পুরুষের অন্ডকোষ অনেক পুরুষ এই ব্যাপারটিতে অজ্ঞ।

তাদের অন্ডকোষের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু যৌনতা লুকানো থাকে। নারী যখন পুরুষের অন্ডকোষে হাত দেয় কিংবা তাতে মৃদু চাপ সৃষ্টি করে, তখনও পুরুষ বিশেষ এক ধরনের আনন্দ পেতে পারে। পুরুষের অন্ডকোষ যৌনতা সৃষ্টি করতে পারে। নারীর মৃদু হাত বোলানোতেও এই উত্তেজনা দ্বিগুণ হয়। ত্বকের উত্তেজনা বহু পুরুষের যৌনাঞ্চলের ত্বকেই বিশেষ ধরনের উত্তেজনা থাকে । নারীর স্পর্শে সেটা বেড়ে যায়

যেমন-পুরুষের লিঙ্গের ত্বকে নারীর চুমু দেয়া কিংবা চুষে ফেলাতে পুরুষ যৌন উত্তেজনায় অস্থির হয়ে উঠতে পারে। এটি পুরুষের চরম উত্তেজনার প্রথম স্তর। নারী তাকে চূড়ান্ত উত্তেজনার জন্য তার লিঙ্গমুন্ডকে বার বার চুষতে পারে, এতে করে পুরুষের অবস্থা অধিক কাতর হয়ে উঠবে। তবে নারীকে লক্ষ্য রাখতে হবে, যেন তার দাঁত পুরুষের লিঙ্গে ক্ষতের সৃষ্টি না করে। কেন না চরম অবস্থায় উভয়েই বোধজ্ঞান কিছুটা হারিয়ে ফেলতে পারে।

সেক্স বাড়ানোর ঔষধ নিয়ে কিছু কথা :

যারা সহবাসের পূর্বে বা শখের বসের যৌন শক্তি বাড়ানো ঔষধ ইয়াবা অথবা ইন্ডিয়ান ট্যাবলেট সেবন করেন.তাদের জন্য একটি পরামর্শ সেক্স বাড়ানো জন্য যৌন শক্তি বর্ধক ট্যাবলেট খাবেন না । এই ঔষধ পুরুষ কে ধ্বজভংগ রোগের দিকে ঠেলে দেয় কিছু ক্ষেত্রে মানুষকে মৃত্যুর ঠেলে দেয় । যৌন শক্তি বাড়ানো জন্য কোন ঔষধ সেবনের প্রয়োজন নেই.গবেষনায়দেখা যায় পুরুষের পুষ্টিকর খাদ্য খাওয়ার মাধ্যমেযৌন শক্তি পেয়ে থাকে । এক্ষেত্রে গাভীর খাঁটি দুধ ও ডিমের ভূমিকা অসাধারন।

যৌনশক্তি বাড়ানোর ক্ষেত্রে ইউনানী ঔষধগুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখতে পারে ।এজন্য অবশ্যই অভিঞ্জ ও রেজিষ্টার্ড হাকীমের পরামর্শ নিতে হবে ।মনে রাখবেন রাস্তা ফুটপাতে থেকে যৌন শক্তিবর্ধক ট্যাবলেট কেনাথেকে বিরত থাকুন ।যৌন বাড়ানোর কোন মন্ত্র আছে বলে বিঞ্জান বিশ্বাস করেন না।

যারা আপনাকে মন্ত্র পড়ে সহবাসের পরামর্শ দেয়.নিছক আপনার সাথে প্রতারনাকরে মাত্র । তাই যে কোন চিকিত্সা বা পরামর্শের জন্য রেজিষ্টার্ড চিকিত্সকের পরামর্শ নিন!


সুত্র: breakbd.com
comments | | Read More...

একই মিলনে একাধিক পুর্নতৃপ্তি!

University education
মেয়েরা স্বাভাবিক ভাবেই অনেক লাজুক। তাদের ছোট ছোট সমস্যাই শেয়ার করতে পারে না আর যৌন সমস্যা হলে তো কথাই নেই। মেয়েদের এমন কিছু কষ্টের কথা নিয়েই সাজিয়েছি আজকের ছোট প্রবন্ধ। বিবাহিত মহিলা ও যারা বিয়ের পায়তারা করছেন তাদের জন্য এটি বিশেষ উপকারী হবে বলেই মনে করছি। কিছু গুরুত্বপূর্ণ সমস্যার ব্যাপারে আলোকপাত করা হয়েছে, সমস্যা গুলোকে হালকা দৃষ্টিতে না দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়াই সমীচীন হবে।

যৌন চাহিদা হওয়ার পরেও লুব্রিকেশনের অভাব কারণঃ অনেকেরই যৌন চাহিদা হওয়া সত্ত্বেও যৌন স্থান ভিজে না। পানিশূন্যতা, বিভিন্ন ধরনের ওষুধ ( কাউন্টার এন্টিহিস্টামিন), নার্সিং, মেনোপজের সময় হরমোন লেভেল পরিবর্তন এর উল্লেখযোগ্য কারণ।

চিকিৎসাঃ পিচ্ছিল কারক পদার্থ ব্যবহার করতে হবে, পানি জাতীয় ব্যবহার করলে ভালো, কারণ কনডম এর জন্যে নিরাপদ। কিন্তু কেউ যদি তৈলাক্ত পিচ্ছিল কারক ব্যবহার করে তখন এটি কনডমের স্থিতিস্থাপকতা নষ্ট করে দিতে পারে। রঙ দেয়া, সেন্ট দেয়া ও ফ্লেভার জাতীয় লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করা যাবে না। কারণ তা ইস্ট ইনফেকশন করে শুকনা ভাব আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। অনেকের প্রশ্ন হতে পারে, ইস্ট ইনফেকশন কি তার পুরুষ সঙ্গীর শরীরেও ইনফেকশন করতে পারে? উত্তর হবে হ্যাঁ ।

এটি অনেক কমই হয়, কিন্তু হয়। একই রকম লক্ষণ যেমন- লাল হয়ে যাওয়া, চুলকানি, যৌনমিলনের পর অস্বাভাবিক নিঃসরণ হতে পারে। কোন পুরুষের যদি ডায়াবেটিস থাকে, এন্টিবায়োটিক নিতে থাকে অথবা সে তার যদি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কোন কারণে কমে যায় তখন তার আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি বেড়ে যায়। খৎনা করা না থাকলেও এর ঝুকি বেড়ে যায়। কারণ এর উপরের চামড়া ভেজা ভেজা অবস্থার সৃষ্টি করে যা ইস্ট বেড়ে ওঠায় সাহায্য করে।

মিশনারি (পুরুষ উপরে থাকা ) পজিশনে যৌন মিলনে সমস্যা হওয়াঃ শতকরা ২০ ভাগ মহিলার জরায়ু নরমালের উল্টো দিকে থাকতে পারে অর্থাৎ পেটের দিকে না থকে শিরদাঁড়ার দিকে থাকেতে পারে। এ ক্ষেত্রে টেম্পুন বা ডায়াফ্রাম ব্যবহার করা কষ্টকর হয় কারণ তা জরায়ুর ভেতর পর্যন্ত চলে যেতে পারে। তাই নারী উপরে থেকে মিলনে কষ্ট লাঘব হবে। আর মা হতে চাইলে যৌন মিলনের পর পেটের উপর অর্থাৎ উপুড় হয়ে কিছুক্ষণ শুয়ে থাকলে তা স্পার্ম কে সাঁতরে জরায়ুমুখে যেতে সাহায্য করবে।

যৌন চাহিদা কমে যাওয়াঃ মেনোপজের কাছাকাছি বয়সের মহিলাদের এটি একটি উল্লেখযোগ্য সমস্যা। মেনোপজের আগে ইস্ট্রোজেন হরমোন লেভেল কমে যায়। লুব্রিকেশনের অভাবে ব্যথা ও ব্যথা থেকে আগ্রহ কমে যাওয়া এর প্রধান কারণ।

চিকিৎসাঃ হরমোন রিপ্লেসমেন্ট থেরাপি , ইস্ট্রোজেন ক্রিম ও সাপোজিটরি আর লুব্রিকেন্ট (পিচ্ছিল কারক ) কাজ দিতে পারে।

যৌন মিলনের পর প্রস্রাবে জ্বালাপোড়াঃ

কারণঃচাপে ঘষা লেগে মূত্রনালিতে ইরিটেশন হলে জ্বালাপোড়া হতে পারে। দীর্ঘক্ষণ মিলন আর যৌন স্থানের শুষ্ক ভাবও এর গুরুত্বপূর্ণ কারণ। প্রস্রাব নালীতে ইনফেকশন হলেও এই সমস্যা হতে পারে। যদি প্রস্রাব যৌন স্থানে লাগার পর জ্বালাপোড়া হয় তবে ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। মুত্রথলি খালি হওয়ার সাথে সাথে ব্যথা বাড়তে থাকলে মুত্রথলি ইনফেকশনের ব্যাপারেই সন্দেহ বেড়ে যায়।

চিকিৎসাঃযৌন মিলনের পর বাথ টাব ভর্তি কুসুম গরম পানিতে বসে থাকলে ব্যথা কমতে পারে। তাছাড়া পিচ্ছিল কারক ব্যবহারেও মাঝে মাঝে উপকার পাওয়া যেতে পারে। যদি এসব কিছুতেই লাভ না হয় তবে ডাক্তার দেখাতে হবে কারণ তখন কারণটা ইনফেকশনের দিকেই বেশি ইঙ্গিত করে। পানি বেশি পান করলে পিচ্ছিলতা ও ইনফেকশন থেকে মুক্তি দুইটা জিনিসেই উপকার পাওয়া যায়।

যৌনমিলনের পর তীব্র দুর্গন্ধ ও চুলকানিঃ

কারণঃ ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে এমন হতে পারে। নতুন বা একাধিক মিলন সঙ্গীর কারণে এমন হতে পারে। যৌন স্থানের ভেতরে কিছু দেয়া থাকলে ( যেমন চিকিৎসার জন্যে বা রোগ নির্ণয়ে কোন কিছু ব্যবহার করা হলে ) তা থেকেও হতে পারে। এর পাশাপাশি ইনফেকশনের আরও কিছু লক্ষণ থাকতে পারে যেমন অস্বাভাবিক নিঃসরণ, জ্বালাপোড়া। চিকিৎসা না করা হলে ডেট এর আগেই ডেলিভারি হওয়া, স্বল্প ওজনের বাচ্চা জন্ম নিতে পারে।

চিকিৎসাঃ এন্টিবায়োটিক, যেমন- মেট্রোনিডাজল বা ক্লিন্ডামাইসিন ব্যবহারে লাভ হতে পারে। যাদের বাচ্চার জন্মকালীন ওজন কম বা যাদের ডেট এর পূর্বেই সন্তান জন্ম নিয়েছে তাদের স্ক্রিনিং করাতে হবে।

শেষ করার আগে একটা ছোট্ট টিপস দিতে চাই। অনেকেই মনে করেন পিল খেলে মোটা হওয়ার ঝুকি বেড়ে যায়। দীর্ঘ দিন ব্যবহারের জন্যে পিলের উপরে কিছু নেই। আর নতুন বাজারে আসা পিল গুলোর সাইড ইফেক্ট-ও কম। কনডম ছিড়ে গিয়ে লিক করতে পারে। সেইফ পিরিয়ড মেনে যৌন মিলন শুধু রেগুলার পিরিয়ড হওয়া মেয়েদের জন্যেই কার্যকরী। তাও সেইফ থেকে ঠিক আনসেইফ পিরিয়ড হওয়ার সময়-ও ভুলবশত গর্ভধারণ হয়ে যেতে পারে কারণ এতটা হিসেব মেনে সেইফ আনসেইফ বের করা সম্ভব হয় না আর জরায়ুর ভেতরে জন্মনিয়ন্ত্রক ডিভাইস রেখে দিলে তার সাইড ইফেক্ট এর তো শেষ নেই। তাই সিদ্ধান্ত আপনার। নিরাপদ থাকুন।


সুত্র: www.breakbd.com
comments | | Read More...

যে কারনে পুরুষের ভুঁড়ি থাকা ভালো!

health education
নারীরা, আপনারা যারা ভুঁড়িওয়ালাদের পছন্দ করছেন না, তারা হয়তো ভুল করছেন। পুরুষরা, আপনাদের যাদের ভুঁড়ি আছে। তারা নিশ্চয়ই আছেন টেনশনে। স্ত্রী পীড়াপীড়ি করে কমানোর জন্য। সাথে আছে বন্ধুরা। ব্যায়াম করতে করতে আপনার প্রান যায় যায়। কারন আমরা জানি, ভুঁড়ি থাকা খারাপ, স্বাস্থ্যের অনেক জটিলতা তৈরি হয় এতে। তবে বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি এক গবেষণায় পেয়েছেন অবাক করা ফলাফল। নিজের বেরিয়ে আসা ভুঁড়ি নিয়ে যারা আছেন হীনমন্যতায়, তাদের জন্য এটা সুখবর, আশার বাণী তো অবশ্যই!

International Journal of Impotence Research জার্নালে গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়। তুর্কির গবেষকদের মতে, পুরুষদের ভুঁড়ি থাকলে তারা মিলনে বেশি পারদর্শী হন। পুরুষ শরীরে মেদ বেশি থাকলে এস্ট্র্যাডিওলের পরিমাণও বাড়ে। এস্ট্র্যাডল এক ধরণের হরমোন যা পুরুষদের প্রচণ্ড উত্তেজিত করে তোলে এবং সহজে স্খলন হতে বাধা দেয়।

কায়জেরির এরসাইজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ২০০ জন পুরুষের বদি মাস ইনডেক্স এবং শারীরিক মিলনে পারদর্শিতার তুলনামূলক এক গবেষণা চালিয়ে এই সিদ্ধান্তে এসেছেন বৈজ্ঞানিকরা। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বডি মাস ইনডেক্স ও চওড়া থলথলে পুরুষরা গড়পড়তা পুরুষের তুলনায় মিলনে সাড়ে সাত মিনিট বেশি স্থায়ী হতে সক্ষম।

সূত্রঃ breakbd.com
comments | | Read More...

ভালোবাসা দীর্ঘস্থায়ী করায় করনীয়

life insurance
ভালোবাসতে ভালোবাসে সবাই। কিন্তু ভালোবাসার সম্পর্ক দীর্ঘদিন ধরে রাখতে পারে কয়জন? প্রথম দেখায় প্রেম হয়ে যেতে পারে। সব ঠিকঠাক। কিন্তু তারপর ভুল–বোঝাবুঝির জন্য দূরত্ব সৃষ্টি হতে দেখা যায় অনেক সময়। আমি ওকে প্রাণের চেয়েও ভালোবাসি। আমার প্রতি ওর ভালোবাসায়ও আছে প্রাণের স্পন্দন। অথচ একজনের কিছু কথা, মনের কিছু ভাব সঙ্গীকে ভাবিয়ে তুলতে পারে। আন্তরিকতার অভাব না থাকলেও এ ধরনের অঘটন ঘটে যেতে পারে। যেমন ও বলল, আজ সন্ধ্যায় চলো না যাই শিল্পকলায়, খুব সুন্দর একটা নাটক চলছে, দেখে আসি।

কিন্তু আপনার ভালোবাসার মানুষটির পছন্দ সেটা নয়। সে হঠাৎ বলে বসল, নাটক দেখে সময় নষ্ট করার কোনো মানে হয়! তার চেয়ে চলো যাই শাহবাগ চত্বরে, গল্প করে একটা সুন্দর সন্ধ্যা কাটাই। ভালোবাসার জন্যই নাটক দেখা। প্রেমের জন্যই গল্প করা। এ দুয়ের সুন্দর সম্মিলন ঘটানো কঠিন কিছু নয়। এর মধ্য দিয়েই সম্পর্ক গভীরতর হয়।

কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিশেষজ্ঞ ক্যারোলিন জুইক সব সময় বলেন, আগে নিজেকে প্রশ্ন করুন, আমি কি ঠিক করছি? এ রকম মনোভাব আপনার সঙ্গীকে কাছে ধরে রাখবে। সম্পর্ক গভীরতর করার বিষয়ে বিভিন্ন জনের কয়েকটি পরামর্শ আমরা নিতে পারি।

এক
কৃত্রিম কোনো কিছুই করবেন না। আজ ওর কাছে যাবেন, তাই খুব সাজগোজ করতে হবে, সাজানো কিছু কথা বলতে হবে, তা নয়। আপনি যা, তা আপনার বন্ধুকে জানতে দিন। এ জন্য পারলারে যাওয়ার দরকার নেই। সে যদি আপনাকে সত্যিই ভালোবাসে, তাহলে অতি সাধারণ পোশাক, মিষ্টি হাসি ওর কাছে অসাধারণ লাগবেই। সরলতা আপনার সঙ্গীকে আরও কাছে টেনে আনবে।

দুই
নিজের দুর্বলতা সম্পর্কে নিজে সচেতন থাকুন, কিন্তু খুব কাছের বন্ধু হিসেবে ওকে সবকিছু জানতে দিন। তাহলে সেও তার নিজের দুর্বলতাগুলো আপনার কাছে মেলে ধরবে। এভাবেই সম্পর্ক ঘনিষ্ঠতর হয়।

তিন
সন্দেহবাতিকে পড়বেন না। আপনি যদি সব সময় আপনাদের সম্পর্ক নিয়ে কেবল দুর্ভাবনায় থাকেন, তার প্রতিফলন ঘটবে সব কাজে ও কথায়। এটা আপনার সঙ্গীকে দূরে সরিয়ে দেবে। একে অপরের প্রতি মর্যাদা প্রেমের একটি অন্যতম শর্ত। ও কি আমাকে সত্যিই ভালোবাসে—এ রকম প্রশ্ন একদম প্রশ্রয় দেবেন না। কারণ, কিছু প্রাথমিক শর্ত পূরণ না হলে তো আপনাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হতো না।

চার
মনে রাখবেন, প্রেম হলো এক অর্থে দুই স্নায়ুতন্ত্রের (নার্ভাস সিস্টেম) মধ্যে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান। জীবনে নানা ঘটনার ঘাত-প্রতিঘাত থাকে। সেই সংকটের মুহূর্তে দৃঢ়তা নিয়ে আপনার সঙ্গীর পাশে দাঁড়ান। এটা সম্পর্ক দৃঢ়তর করার এক পরীক্ষা।

পাঁচ
নিজের মতো করে আপনার ভালোবাসার মানুষটিকে গড়ে তোলার চেষ্টা করবেন না। এতে প্রেমের আবেগে সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। প্রত্যেক মানুষেরই থাকে নিজস্ব ব্যক্তিত্ব। নিজের আলাদা কিছু চিন্তাভাবনা। ভালো লাগার বিষয়। ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যের বৈচিত্র্যকে মর্যাদা দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

ভারসাম্যপূর্ণ রোমান্টিক জীবন গড়ে তোলা ও সম্পর্ক গভীরতর করা কঠিন কিছু নয়। নিজেকে ভালোভাবে জানুন ও প্রকাশ করুন, তাহলে সঙ্গীও বাইরে থেকে আপনার ভেতরটা দেখতে পাবে। এটা সম্পর্ক গতিশীল রাখার অন্যতম শর্ত।


সুত্র : www.breakbd.com
comments | | Read More...

ঘুমন্ত অবস্থায় যা ঘটতে থাকে মস্তিষ্কে!

Helth Insurance Tips
জীবনের এক তৃতীয়াংশ সময় মানুষ ঘুমিয়েই কাটাই দেয়। সারাদিনের ব্যস্ততার পর আমাদের সার্বিক সুস্বাস্থের ওপর ঘুমের প্রভাব তো অনিবার্য। কিন্তু ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় কী ঘটে আমাদের শরীরে? বাকি শরীরটা অচল থাকলেও, ঘুমের মাঝে আমাদের মস্তিষ্ক কিন্তু ঠিকই কাজ করে চলে! জেনে নিন ঘুমন্ত অবস্থাতেও কী কী করতে থাকে আপনার মস্তিষ্ক।

সিদ্ধান্ত নেয় : দিনের বেলায় আমরা যেসব সিদ্ধান্ত নিতে পারি না, ঘুমন্ত অবস্থায় সেসব সিদ্ধান্ত নেয় আমাদের মস্তিষ্ক এবং সে অনুযায়ী পরের দিন কাজ করার জন্য প্রস্তুত হয়। দিনের বেলায় পাওয়া তথ্য এবং স্মৃতি যাচাই-বাছাই করে জটিল সব সিদ্ধান্ত নিতে পারে মস্তিষ্ক, ঘুমন্ত অবস্থাতেই।

স্মৃতি তৈরি করে, মজবুত করে রাখে এবং ভুলে যাওয়া স্মৃতি মনে করিয়ে দেয় : সারাদিনে আপনি যা যা করলেন, মস্তিষ্ক তার থেকে গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতি তৈরি করে। এর পাশাপাশি সে পুরনো স্মৃতিগুলোকে আরও মজবুত করে এবং নতুন ও পুরনো স্মৃতির মাঝে সংযোগ সৃষ্টি করে। মস্তিষ্কের হিপ্পোক্যাম্পাস অংশ এর জন্য কাজ করে। আর ঘুম কম হলে হিপ্পোক্যাম্পাসের কাজ ব্যহত হয়, ফলে স্মৃতি তৈরির এই প্রক্রিয়ায় দেখা যায় ত্রুটি। এ জন্য ঘুম কম হলে আমরা নতুন জিনিস শিখতে পারি না। খুব কম সময়ে স্মৃতি ভুলে যেতে থাকি। পরীক্ষার আগের দিন রাত্রে না ঘুমিয়ে থাকার সিদ্ধান্ত নেবার আগে এ ব্যাপারে ভেবে দেখবেন। কারণ ঘুম না হলে পড়া মনে থাকার সম্ভাবনা কমে যেতে পারে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত!

পুরনো স্মৃতি মজবুত করার পাশাপাশি ভুলে যাওয়া স্মৃতি মনে করিয়ে দিতে কাজ করে ঘুম। বিশেষ করে কোনও কাজ অনেকদিন না করার ফলে যদি তাতে আপনার দক্ষতা কমে যায় বা একেবারেই চলে যায়, তাহলে ঘুম এই হারানো স্মৃতি মনে করিয়ে দিতে পারে।

সৃজনশীলতা বাড়ায় : ঘুমের মাঝে সৃজনশীল চিন্তাভাবনা করে আপনার মস্তিষ্ক। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় ঘুম থেকে উঠে নতুন নতুন সব আইডিয়া পেয়ে যান শিল্পীরা। এর কারণ হলো ঘুমন্ত অবস্থায় মস্তিষ্ক এমন সব বিষয়ের মাঝে সংযোগ খুঁজে পায় যা জাগ্রত অবস্থায় পাওয়া সম্ভব নয়।

টক্সিন দূর করে : ইঁদুরের ওপর একটি গবেষণায় দেখা যায়, ঘুমন্ত অবস্থায় তাদের মস্তিষ্কের কোষগুলোর মাঝে দূরত্ব বেড়ে যায়। ফলে মস্তিষ্ক তার মাঝে জমে থাকা টক্সিন দূর করতে পারে সহজে, যে টক্সিন সারা দিন ধরে জমা হতে থাকে। যথেষ্ট ঘুম না হলে মস্তিষ্ক এসব টক্সিন দূর করার সুযোগ পায় না ফলে দেখা দেয় আলঝেইমার্স এবং পারকিনসনস এর মতো রোগ।

নতুন নতুন কাজ করতে শেখে : ড্রাইভিং, সাইক্লিং, সাঁতার বা নতুন কোনো খেলা শেখার মতো শারীরিক কাজগুলো শেখার প্রক্রিয়া চলে ঘুমের মাঝেই। বিশেষ করে ঘুমের REM পর্যায়ে। এ সময়ে মস্তিষ্ক এসব কাজের স্মৃতিকে দীর্ঘমেয়াদি করে যাতে কাজটা করার অভ্যাস আমাদের মাঝে শক্তপোক্ত হয়ে যায়।

আপনার ওজন কমায় :ঘুমের সময়ে আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করে মস্তিষ্ক। এ সময়ে আপনার শরীর থেকে পানি বের হয় যায় নিঃশ্বাস এবং ঘামের সাথে। আর এ সময়ে আপনি খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করেন না বলে দিনের বেলার চাইতে দ্রুত ওজন কমে রাতের বেলায়।

পুরনো কিছু ঘটনার ক্রম মনে করিয়ে দেয় : পুরনো কিছু ঘটনার স্মৃতি মনে আছে আপনার। কিন্তু কোনটির আগে কোনটি ঘটেছে তা মনে রাখতে পারেন না অনেকেই। যেমন আপনি আগে সাইকেল চালানো শিখেছিলেন নাকি সাঁতার? ঘটনার ক্রম মনে করার ক্ষেত্রে ঘুমের গুরুত্ব আছে। ভালো ঘুমের ফলে ঘটনার ক্রম ঠিক থাকে এবং মনে করাটা সহজ হয়।

সুত্র: breakbd.com
comments | | Read More...

Popular posts

 
Design Template by Edu Blog | Support by Download Full Movies | Powered by Blogger